টুকুনজিল - মুহম্মদ জাফর ইকবাল Tukunjil - Muhammed Zafar Iqbal pdf | bdeboi.com
Home » » টুকুনজিল - মুহম্মদ জাফর ইকবাল Tukunjil - Muhammed Zafar Iqbal pdf

টুকুনজিল - মুহম্মদ জাফর ইকবাল Tukunjil - Muhammed Zafar Iqbal pdf

 বইয়ের নামঃ টুকুনজিল

লেখকঃ মুহম্মদ জাফর ইকবাল

সাইজঃ ৫ এমবি

ফরমেটঃ  পিডিএফ


টুকুনজিল - মুহম্মদ জাফর ইকবাল 





টুকুনজিল


নীলগাঙের তীরে নীলাঞ্জনা হাই স্কুল। সেই ইস্কুলে পড়ে বিলু। সেভেনে।
বিলুরা চার ভাই-বোন। বড়বু, রাঙাবু, বিলু আর সবার ছোট লাবু। বিলুর মা আছেন আর আছেন একটু অন্য ধাঁচের একজন বাবা। জীবজন্তুর কথা বুঝতে পারেন বলে সবাই তাকে পাগল ভাবে। কী অন্যায় বলো তো?

বাবাকে নিয়ে বিলুর অনেক দুঃখ। লোকে বাবাকে পাগল বলে বলেই ওর বড়বুর পড়াশোনা হলো না। একটা প্রস্তাব আসতেই সবাই জোর করে ওর বুবুটাকে বিয়ে দিয়ে দিলো। অথচ বুবু পড়াশোনায় কী ভালোই না ছিলো!
বিলু নিজেও কিন্তু পড়াশোনায় ভীষণ ভালো। ওর রোল নং কতো জানো? এক, ক্লাসের ফার্স্ট বয় ও। পুরো জেলায় বৃত্তি পরীক্ষায় প্রথম হয়েছিলো সেবার, হুঁ হুঁ বাবা।তাই বলে সারাদিন ঘাড় গুঁজে কেবল পড়াশোনাই করে না ও, প্রাণের বন্ধু দুলালের সঙ্গে লাইব্রেরি থেকে গল্পের বই নিয়ে মজা করে পড়েও।দমাদম পিটিয়ে ফুটবলও খেলে। ওদের একটা ফুটবল ক্লাবও আছে, জানোতো? গ্রীন বয়েজ ফুটবল ক্লাব।

বিলুর ছোটখালা থাকেন শহরে। একবার হঠাৎ করে এসে বিলুকে নিয়ে যান তিনি, এতো মেধাবি ছেলেটা, এখন থেকে নাহয় তার বাসায় থেকেই পড়াশোনা করুক। বন্ধুদের আর বাবা-মাকে ছেড়ে যেতে হবে জেনে বিলুর ভীষণ মন খারাপ হয়, ভীষণ-ই! কিন্তু খালার টকটকে লাল গাড়িতে চেপে শহরে যেতে পারবে জেনে খুশিও হয় ও।
বল্টু আর মিলি, বিলুর ছোটখালার দুই ছেলেমেয়ে। ওরা ঠিক আপন করে নেয় না ওকে, ভাবে গেঁয়ো,বোকা ছেলে। ওর নূতন ইস্কুলের ফার্স্ট বয় লিটন, সেও বিচ্ছিরি ব্যবহার করে ওর সঙ্গে, প্রথম দিন থেকেই। লিটন কিনা ক্যারাটে'তে ওস্তাদ, তাই খামোখাই বিলুকে ধরে সেইরকম পিট্টি-ও দেয় দুষ্টু ছেলেটা। বিলুর বড্ড মন খারাপ হয় সব মিলিয়ে। ভাবো তো, এইটুকুনি একটা ছেলে.. বাবা-মা-ভাই-বোন সবাইকে ছেড়ে এতোদূরে এসেছে, তায় আবার অন্যায়ভাবে মার খেলো। খারাপ তো লাগবেই, তাই না?

কিন্তু নূতন ইস্কুলের যিনি ক্লাসটিচার, ভীষণ ভালো মানুষ তিনি। তারিক, মাহবুব, সুব্রত, নান্টু এরকম আরো ভাল কিছু ছেলের সঙ্গে দ্রুত বন্ধুত্ব হয়ে যায় ওর। বিলুর আর তখন একা একা লাগে না।
আরেকজন বন্ধু পায় বিলু, টুকুনজিল। এন্ড্রোমিডা নক্ষত্রপুঞ্জ থেকে আসা মহাকাশের প্রাণী। ভীষণ ক্ষমতা তার, তবে কিনা এইটুকুনি দেখতে। তাই তার নাম রেখেছে বিলু, টুকুনজিল। ভাগ্যিস বিলুর ছোটখালুর ভাই বিদেশ থেকে ফিরে ওর খালার বাসায় বেড়াতে এসে বিলুকে একটা ম্যাগনিফাইং গ্লাস উপহার দিয়েছিলেন। নয়তো টুকুনজিলকে তো ও খুঁজেই পেতো না কখনো।

বব কার্লোস নামে এক নিষ্ঠুর বিজ্ঞানি ওঁৎ পেতে ছিলো টুকুনজিলকে ধরে নেবে বলে। ধরে নিয়ে আটকে রাখবে বছরের পর বছর, ল্যাবরেটরিতে পরীক্ষা করে দেখবে কী করে এতো কিছু জানে, কেমন করে এতো ক্ষমতা টুকুনজিলের।
কিন্তু বিলু তো টুকুনজিলের বন্ধু। তোমার বন্ধুকে কেউ যদি খাঁচায় পুরে রাখতে চাইতো, তুমি কি তা হতে দিতে? তাই সবটুকু সাহস নিয়ে বন্ধুকে বাঁচাতে ঝাঁপিয়ে পড়ে সে।সঙ্গে থাকে তারিক, মাহবুব, সুব্রত, নান্টু..ওর ইস্কুলের স-ব বন্ধুরা।
তারপর টুকুনজিল পচা বিজ্ঞানী কার্লোস আর তার সাঙ্গপাঙ্গকে ক্যামন শিক্ষা দেয়, উফফ, তা যদি দেখতে!
এরপর বিলুকে ফিরিয়ে দিয়ে আসে নীলগঞ্জে, ওর বাবা-মার কাছে। যেখানে সবাই পথ চেয়ে ছিলো, বিলু কবে বাড়ি ফিরবে।টুকুনজিলও ফিরে যায় এন্ড্রোমিডায়, তার নিজের গ্রহে। দিনের শেষে সবাই তো নিজের জায়গায়, নিজের মানুষদের কাছে ফেরে, তাই না?

এরপর অনেকদিন কেটে গেছে।বিলু এখন নীলগঞ্জেই থাকে, এখানেই পড়ছে সে। ওর রাঙাবু আছে, মা আছে, বন্ধু দুলাল আছে, কে যায় এদের ছেড়ে! বাবাও তো ভালো হয়ে গেছেন ওর, টুকুনজিল ওর বাবাকেও সারিয়ে দিয়ে গেছে।
শুধু সন্ধ্যায় কিংবা অনেকরাতে, যখন মিটমিটে জোনাকির মতো আকাশ জুড়ে নক্ষত্রের মেলা বসে..তখন দূরে তাকিয়ে বিলু দূর মহাকাশের গ্রহে থাকা ওর সেই বন্ধুর কথা ভাবে।

যেমনটা ভাবে টুকুনজিলও, ওর বন্ধু বিলুর কথা, ছায়াপথের অন্য প্রান্তে দাঁড়িয়ে।

বিজ্ঞানী অনিক লুম্বা BY মুহম্মদ জাফর ইকবাল

এ মাসের সেরা বই

সেরা বই

Search This Blog

Follow by Email

Writers

 
Copyright © 2015 bdeboi.com
Copyright Issue || SiteMap || Download Tutorial